ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গেলে বা ডুবে গেলেও কি সুরক্ষিত থাকবে গ্রাহকদের টাকা? এই বিষয়ে বড় সিদ্ধান্ত মোদি সরকারের!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-আমরা সারা বছর কিংবা সারাজীবনের উপার্জন করা টাকা আমি ব্যাংকের মধ্যে গঠিত রাখি ।তার কারণ হচ্ছে আমরা এমনটা মনে করি যে ব্যাংকের মধ্যে টাকা রাখলে সেটা সুরক্ষিত অবস্থায় থাকে ।কিন্তু পূর্বের এমন বহু ঘটনা রয়েছে যার মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি ব্যাংক জালিয়াতির ঘটনা ।

অর্থাৎ কোন ব্যক্তি ব্যাংক থেকে সমস্ত টাকা তুলে নিয়ে পালিয়ে গেছে বিদেশে বা ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গেছে কিংবা বন্ধ হয়ে গেছে । সে ক্ষেত্রে এত বিপুল পরিমাণ গ্রাহকের টাকা কোথায় যাবে গ্রাহক তাদের জমানো টাকা কিভাবে ফেরত হবে? আদৌ কি ফেরত পাবে? এ ব্যাপারে এতদিন পর্যন্ত ছিল সংশয় । তবে এবার সেই সমস্যা কাটিয়ে মানুষের পক্ষে উত্তর দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ।

ঐদিনের একটি বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী বলেন যে আমি গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রীর থাকাকালীন অবস্থায় বিভিন্ন ভারকেন্দ্র কে অনুরোধ করেছি যাতে ব্যাংক ডিপোজিট ইন্সুরেন্স এর পরিমাণ 1 লক্ষ টাকা থেকে বাড়িয়ে 5 লক্ষ টাকা করা হয় ।কিন্তু তখন কোনো কাজ হয়নি কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হবার পর আমি সে কাজ করে দেখিয়েছি ।

আগে এই টাকার পরিমাণ ছিল 50 হাজার টাকা পরবর্তী ক্ষেত্রে সেটা বাড়িয়ে 1 লক্ষ টাকা করা হয়েছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানান এবার থেকে 1 লক্ষ নয় বরং 5 লক্ষ টাকার ডিপোজিট ইন্সুরেন্স তবে গ্রাহকেরা এবং ।এতে 98% গ্রাহকরা উপকৃত হবে বলে অনুমান। ।

প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী আরো জানান যে সমস্যা বজায় রাখার সংস্কৃতি বহুবছর ধরে চলে এসেছে কিন্তু বর্তমান সময়ে এই সব সমস্যার দ্রুত সমাধান করে ফেলা সম্ভব হয়েছে। যদি ব্যাংক ডুবে যায় তাহলে 90 দিনের মধ্যে গ্রাহকরা তাদের টাকা পেয়ে যাবেন।

আমি দেশের বহু পন্ডিত অর্থনীতিবিদদের মত কথা বলি না , আমি খুব সাদামাটা ভাষায় কথা বলি।দেশের এই উন্নয়নে ব্যাংকের এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। আর ব্যাংকের উন্নতির জন্য গ্রাহকদের জমা টাকার বিষয়টি সুরক্ষিত রাখা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button