দেখে নিন কিভাবে খুব সহজেই বাড়িতে মাশরুম চাষ করে মাসে প্রচুর টাকা রোজগার করবেন! রইল পদ্ধতি।

নিজস্ব প্রতিবেদন:বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় খাবার হিসেবে ক্রমাগত মানুষের মধ্যে মাশরুমের চাহিদা বেড়েই চলেছে। অনেকেই সাধারণত মাশরুম মানেই বিষাক্ত মনে করে থাকেন। কিন্তু এটি একেবারেই ভুল। পৃথিবীতে প্রায় 45 হাজার ধরনের ছত্রাক রয়েছে।

এর মধ্যে প্রায় 2 হাজার প্রজাতির ছত্রাক খাবার হিসেবে একেবারে উপযুক্ত।আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা মাশরুম চাষ করে কিভাবে আপনারা লক্ষাধিক টাকা রোজগার করতে পারবেন তা নিয়ে আলোচনা করতে চলেছি।

প্রথমেই জানিয়ে রাখি ভারতের জলবায়ুতে তিন ধরনের মাশরুম চাষ করা হয়। এগুলি হল পোয়াল, ধিংরি ও বোতাম। প্রথমে 50 কিলো গ্রাম 1 বছরের পুরনো আমন ধানের খড় 32 টি আটিতে ভাগ করে নিতে হবে। এরপরে খড়গুলিকে 12 থেকে 16 ঘণ্টা পর্যন্ত জলে ভিজিয়ে রাখুন। নির্দিষ্ট সময় পর বাড়তি জল ঝরিয়ে নিয়ে মাশরুম চাষে ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে রোগ লাগার সম্ভাবনা কম থাকে।

প্রথম স্তরের কাজ শেষ করার পরে দ্বিতীয় স্তরে খড় প্রথম স্তরের আড়াআড়ি বিছিয়ে আগের মত মাশরুম বীজ ও ডালের গুঁড়ো ছিটিয়ে দিন। এরপর সমান্তরাল চতুর্থ স্থানে আট আটি খড় একইভাবে বিছিয়ে দিন।প্রতিটি স্তরের খড়ের আঁটি গুলি যাতে ভেঙে না পড়ে সেজন্য একাধিক জায়গায় দড়ি বা খড় দিয়ে আলতো বাঁধন দিতে হবে।

সম্প্রতি রাজস্থানের কৃষি গবেষণা কেন্দ্র এবং শ্রীগঙ্গানগরের বিজ্ঞানীরা একসঙ্গে এই প্রযুক্তিটি তৈরি করেছেন। এই প্রযুক্তির মাধ্যমে খুব সহজেই মাশরুম চাষ করা যাবে।

এই মাশরুম চাষ প্রসঙ্গে কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের কৃষি বিজ্ঞানী ডঃ এসকে বৈরওয়া জানিয়েছেন,”মাশরুম উৎপাদনের এই নতুন প্রযুক্তিতে খুব একটা পার্থক্য নেই। যারা ঝিনুক মাশরুম চাষ করেন তাদের জন্য আমরা পলিথিনে স্প্যান এবং কম্পোস্ট প্যাক করি। যাতে করে সেই ব্যাগের স্প্যানটি ভালো ভাবে প্রস্তুত করা যায়।

সামান্য পরিবর্তন করে আমরা ড্রিল এর সাহায্যে একই পুরানো পাত্রে অনেকগুলি গর্ত তৈরি করেছি। ওয়েস্টার মাশরুমঅন্যান্য মাশরুমের তুলনায় সহজ এবং সস্তা। দিল্লি, মুম্বাই এর মত বড় শহরে এই মাশরুমের চাহিদা অনেক বেশি। বীজ থেকে এই ওয়েস্টার মাশরুম তৈরি করা হয়। এটি চাষের জন্য খড়, পাত্র এবং ছত্রাকনাশক প্রয়োজন। প্রথমে জলে ছত্রাকনাশক যোগ করে খড়কে ভালোভাবে শোধন করা হয়।

এরপর প্রায় 12 ঘন্টা জলে ভিজিয়ে রাখার পর খড় টিকে জল থেকে তুলে ছড়িয়ে দিতে হবে। এই মাশরুমের ফুল ফোটার সময় কিছু বিশেষ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। খড় ভরাট করে আমরা হাড়িতে যে গর্তগুলি করেছি তা তুলো বা টেপ দিয়ে দশ পনেরো দিন বন্ধ করে দিতে হবে তাতে ভিতরে আদ্রতা বজায় থাকে। তাড়াতাড়ি ছড়িয়ে পড়ে এই ছত্রাক। ফলে চাষ করতে গিয়ে খুব একটা অসুবিধা হয় না”।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button