অল্প পুঁজিতে এই ব্যবসা শুরু করে প্রতিদিন আয় করুন 3000 টাকা করে! জেনে নিন খুঁটিনাটি!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-মানুষ নতুন কিছু করার চেষ্টা করছে। মহামারী এর পর ল নিজের জীবনকে সুন্দর ভাবে চালানো করার জন্য অনেকেই ব্যবসায় মনোনিবেশ করেছে ।ব্যবসা অনেক মানুষের কাছে এখনো পর্যন্ত অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এই অবস্থান যেখানে প্রতিনিয়ত ও বেড়েই চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম সেখানে কোন ব্যবসা সব থেকে লাভ জনক ।তাহলে আজকের এই প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ আপনার জন্য আপনাদেরকে এমন একটি ব্যবসার কথা বলেছেন যেখানে আপনি প্রতিদিন 3000 টাকা উপার্জন করতে পারবেন কোন রকম খাটাখাটনি ছাড়াই।

আজকের প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনাদেরকে মুড়ির ব্যবসা কথা বলতে চলেছি । ভারতে যেমন জনপ্রিয় পানীয় হচ্ছে জল এবং চা তেমনি ভাতের পরে ভারতীয় সবথেকে বেশি খাদ্যতালিকায় জনপ্রিয়তা পেয়েছে মুড়ি ।যা 12 মাস ব্যবহার করে ভারতবর্ষে প্রায় অধিকাংশ পরিবার।

তাই এই ব্যবসা শুরু করলে আপনি খুব অল্প সময়ের মধ্যে অধিক পরিমাণে লাভবান হতে পারবেন । কত টাকা পুঁজি দিয়ে শুরু করতে হবে প্রতিদিন কত টাকা উপার্জন করতে পারবেন সমস্ত কিছু বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা থাকবে আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে ।

মুড়ি তৈরির ব্যবসা। এটা এমন একটা ব্যবসা যেখানে অল্প পুঁজি ব্যয় করে অনেক টাকা আয় করা যায়। এটা একটি লাভজনক ব্যবসা। যেকোনো উদ্যোক্তা এই ব্যবসাটি শুরু করে স্বাবলম্বী হতে পারেন।ঘন্টায় ১৫০ থেকে ২০০ কেজি মুড়ি ভাজার একটি মেশিন কিনতে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকা লাগবে।

তবে এর থেকেও বেশি দামের মেশিন পাওয়া যায় যা ঘন্টায় ১৫০০ কেজির মতো মুড়ি ভাজার ক্ষমতা রাখে। তবে শুরুতে ২০০ কেজি/ ঘন্টা মুড়ি ভাজার মেশিন আপনার জন্য শ্রেয়।যেমন মুড়ি তৈরিতে লাগে চাল, লবণ এছাড়াও মুড়ির প্যাকেট ও কোম্পানির সিল ইত্যাদি বাজার থেকে সংগ্রহ করে নিতে হবে।

মুড়ি তৈরির মেশিন চালাতে গিয়ে প্রয়োজনীয় উপকরণের ব্যবস্থা করে রাখতে হয় আগে থাকতে, যেমন মোটর ও বিদ্যুৎ সংযোগ, মুড়ি ভাজার জন্য গ্যাস তিন ঘণ্টায় ৬০০ কেজি মুড়ি ভাজা যাবে যেখানে ৪ কেজির মতো গ্যাস খরচ হবে। পাইকারি হিসেবে প্রতি কেজিতে কমবেশি ৫ টাকা লাভ করতে পারবেন।

ব্যবসা বড় হলে প্রতি কেজিতে এর থেকেও বেশি লভ্যাংশ থাকবে। সুতরাং ৬০০ কেজি মুড়ি বিক্রিতে ৩০০০ টাকা লাভ করা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button