মাত্র 5-6 লাখ টাকা খরচ করেই বানান দুর্দান্ত ডুপ্লেক্স বাড়ি! রইল প্ল্যান ও ফোননাম্বার সহ বিস্তারিত!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-যদি একটা বাড়ি তৈরি করতে চান তাহলে অতি অবশ্যই আপনাকে চিন্তা ভাবনা করতে হবে যে কোন দোকানে রড ভালো কোথায় বালি কোথায় সিমেন্ট ।তার পাশাপাশি তার মূল্য প্রতিনিয়ত ফেরফের ঘটে চলে তাই মোটামুটি বেশ মোটা অংকের টাকা নিয়ে আপনাকে বাজারে নামতে হবে ।তবেই হয়তো আপনি আপনার নিজের স্বপ্নের বাড়ি তৈরি করতে পারবেন ।

কিন্তু যদি আপনি চান যে এই সমস্ত ঝামেলা গুলি আপনাকে সম্মুখিন করতে না হোক তাহলে বর্তমানের এই অ্যাডভান্স টেকনোলজির মাধ্যমে কিন্তু আপনি বাড়ি তৈরি করতে পারবেন পাশাপাশি আপনাদেরকে জানিনা কিন্তু স্থানান্তরযোগ্য এবার মালিকপক্ষের দুশ্চিন্তা কমাতে এবং যাবতীয় ঝামেলার দূর করতে বাংলাদেশের একটি কোম্পানি এডভান্স ডেভেলপমেন্ট টেকনোলজি বাজারে নিয়ে এসেছে এমন এক ধরনের পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই খুব কম সময়ের মধ্যে তৈরি করতে পারবেন এক তালা বাড়ী।

তাদের পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে যে একতলা বাড়ি তৈরি করতে চার জন শ্রমিকের সাত থেকে আট ঘণ্টা সময় লাগবে । তাতেই তৈরি হয়ে যাবে বাড়ি । আপনি ভাবছেন কীভাবে সম্ভব? তাপ নিরোধক, পরিবেশবান্ধব, হাল্কা, দ্রুত স্থাপনযোগ্য এক্সপ্যান্ডেড পলিস্টিরিন স্যান্ডউইচ (ইপিএস) প্যানেল ব্যবহার করে বানানো যাবে ঘর।

অ্যাডভান্সড ডেভেলপমেন্ট টেকনোলজিসের কর্মকর্তা আশিকুল আলম জানান, এই পদ্ধতিতে বাড়ি তৈরি করলে ইটের চেয়ে অল্প খরচ হবে। ভবন তৈরির সময় প্যানেল টু প্যানেল হুকিং সিস্টেমে লাগানো হয়। ফলে এটি সহজে প্রতিস্থাপনযোগ্য। ইউরোপ থেকে আমদানিকৃত কাঁচামালের মাধ্যমে ইপিএস প্যানেল তৈরি করা হয়।

এ প্রসঙ্গে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর এস এম রিফাত রেজা হোসেন বলেন, টিনের পরিপূরক হিসাবে আমরা দেশে এসএফটি ইপিএস প্যানেল নিয়ে এসেছি। এ উপকরণটি ব্যবহারের ফলে বাইরে থেকে ঘরে তাপ প্রবেশ করতে পারে না, একইভাবে ঘর থেকেও তা বের হতে পারে না। যেহেতু ঘর তাপ প্রবেশ করতে পারে না। ফলে ঘর থাকবে এসির মতো ঠাণ্ডা। বাংলাদেশে এখন বছরের ৯ মাসেই গরম আবহাওয়া বিরাজ করছে।

এমন পরিস্থিতিতে এ প্রযুক্তিটি দেশের প্রত্যেক শ্রেণীপেশার মানুষের উপকারে আসবে।এবং এর খরচা মাত্র ২ লাখ টাকা থেকে ৪ লাখ টাকা যা আপনার সাধ্যের মধ্যে । অতএব আপনি চাইলেই এই ধরনের ব্যবস্থা ব্যবহার করে তৈরি করতে পারেন নিজের বাড়ি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button