একি কান্ড! হঠাৎই বাড়িতে মেকআপ আর্টিস্ট ডেকে সাজলেন রানু মন্ডল! নেট দুনিয়ায় ঝড়ের বেগে ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-রানু মন্ডল এর আত্ম অহংকার পতনের মূল কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে । এমনটাই জানিয়েছে তার অনুগামীরা । হঠাৎ করে অনেক কিছু পেয়ে যাবার পর রানু মন্ডল এর মধ্যে চলে আসে এক অহংকার যা তার পতনের মূল কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে । এমনকি অনুগামীদের সাথে দূর ব্যবহার করার ফলে অনেক মানুষ তাকে আর ভালো ভাবে দেখছেন না।

এমনকি অনেকগুলো রিয়েলিটি শো এর অনুষ্ঠান থেকেও তার নাম বাদ পড়ে গেছে ইতিমধ্যে । ফিরে গেছে সেই রানাঘাট স্টেশন চত্বরে।বেফাস কিছু মন্তব্য এবং অনুরাগীদের সাথে খারাপ ব্যবহার করার জন্য রানু মন্ডল কে ফিরে আসতে হয়েছে আবার আগের পর্যায়ে। অর্থাৎ যেখান থেকে তিনি যাত্রা শুরু করেছিলেন আবার তাকে সেখানেই ফিরে আসতে হয়েছে।

এমনটা শোনা যাচ্ছিল যে মুম্বাই নাকি তার নামি দামি ফ্ল্যাট রয়েছে। পাশাপাশি রয়েছে গাড়ি ।কিন্তু সেগুলো শুধুমাত্র কল্পনার জগতে। বাস্তবে কিন্তু তেমন কিছুই নয় ।রানু মন্ডল এর জায়গা রানাঘাট এই ভাঙাচোরা বাড়িতে । তবে এবার নিজেই বাড়িতে লোক দেখে মেকআপ করলেন রানু মন্ডল কিন্তু কেন।

সাফল্যের একদম তুঙ্গে পৌঁছে গেছেন রানু মন্ডল শুধুমাত্র এক রাতের ব্যবধানে । হিমেশের সাথে করেছে ডুয়েট । গত বছর পুজোর প্যান্ডেলে এহেন এমন কোন মন্ডল নেই যেখানে রানু মন্ডল এর তেরি মেরি গান বাজেনি । সকলের মনে ধরেছিল রানাঘাট স্টেশন চত্বরে রানু মন্ডল । কিন্তু সময়ের সাথে সাথে কোথাও যেন হারিয়ে গেছে রানু মন্ডল । শুধুমাত্র তার নিজের দোষে।

রানু মন্ডল একটি ভিডিওতে এক ছেলেকে তার ভাই হিসেবে পরিচিতি দিয়েছে এবং তিনি বলেছেন যে কোন একটি জায়গা তার নিমন্ত্রণ রয়েছে গান গাওয়ার জন্য কিংবা অন্য কোন কারণের জন্য ।তাই তাকে সাহায্য করে দাও আর যদি একটি ব্যবস্থা করে দেওয়া যায় । তাই সেই ছেলেটি তার বান্ধবীকে নিয়ে এসে উপস্থিত হয়েছে রানু মণ্ডলের বাড়িতে ।তারপর তিনি নিজের ইচ্ছে মতন ভাবে রানু মন্ডল কে মেকআপ করতে শুরু করেছে ।

কিন্তু মেকআপ শেষে যা ফলাফল তা দেখে রীতিমতো লুটোপুটি খাচ্ছে নেট দুনিয়ার মানুষ ।এতটাই বেশি মেকাপ করেছে যে গায়ের রং এর তুলনায় মুখের রং অত্যন্ত বেশি ফর্সা ।তার পাশাপাশি ক্যাটকেটে গোলাপি রঙের লিপস্টিক পড়ানো হয়েছে। যদিও তাতে রানু মন্ডলের কোন সমস্যা ছিল না তবে এই হাস্যকর ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে ব্যাপক পরিমাণে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button