আপনি কি জানেন কেন রেল স্টেশনের নাম সব সময় হলুদ সাইনবোর্ডেই কেন লেখা থাকে? জানলে অবাক হবেন!

নিজস্ব প্রতিবেদন:আমাদের দেশে সাধারণ জনসাধারণের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগ মাধ্যম হল রেল।অল্প সময়ের কোন দূরত্ব হোক কিংবা দূরপাল্লার যাত্রা সবেতেই ট্রেন মুখ্য ভূমিকা গ্রহণ করে থাকে। ভারতীয় রেলকে পরিবহন ব্যবস্থার লাইফলাইন বলা হয়।সম্প্রতি করোনা সংক্রমনের বাড়বাড়ন্তের কারণে প্রায় বেশ কিছু সময় ধরে বন্ধ ছিল দেশের মধ্যে রেল চলাচল।

যে কারণে সাধারণ মানুষের অবস্থা প্রায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিল।যদিও সম্প্রতি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার কারণে আবারো স্বাভাবিক হয়েছে রেল চলাচল।জানিয়ে রাখি ভারতীয় রেলওয়ে বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম রেল নেটওয়ার্ক এবং এশিয়ার মধ্যে দ্বিতীয় বৃহত্তম রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা। ভারতে মোট 7349 টি রেলওয়ে স্টেশন রয়েছে।

তবে ট্রেন জনসাধারণের কাছে মুখ্য পরিবহন মাধ্যম হলেও আমরা অনেকেই এর ছোটখাট ব্যাপার সম্বন্ধে একেবারেই অবগত নয়। যেমন স্টেশনে রেলের সাইনবোর্ড সবসময় হলুদ রঙের হয়ে থাকে। এর পেছনে বিশেষ কিছু মজার কারণ রয়েছে। প্রসঙ্গত হলুদ রঙের আঁকা বোর্ড এর কারণ হলো এটি সরাসরি সূর্যালোকের সাথে সম্পর্কিত।

এই রং মানসিক শক্তি বৃদ্ধি করে থাকে এবং মনের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।পাশাপাশি হলুদ বোর্ডে কালো রঙের লেখা থাকে যা খুব সহজেই দূর থেকে স্পষ্ট ভাবে মানুষ দেখতে পান। এমনকি ট্রেনের চালকও দূর থেকে এই বোর্ড দেখতে পেরে স্টেশন সম্পর্কে জানতে পারেন।

এই হলুদ সাইনবোর্ড দেখে খুব সহজেই ট্রেনের লোকো পাইলটও সজাগ হতে পারেন।ঠিক সময়ে তিনি হর্ন বাজালে পাশাপাশি স্টেশনে উপস্থিত যাত্রীরাও ট্রেনের আগমন সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে বড়সড় দুর্ঘটনার হাত থেকে রেহাই পান।তবে শুধুমাত্র স্টেশনে রেলের সাইনবোর্ড নয় সাধারণত স্কুলের বাসের রং হলুদ রঙের করা হয়ে থাকে।

উল্লেখ্য লাল রং সাধারণত বিপদ নির্দেশ করার জন্য ব্যবহার করা হয়।রেলওয়ের ক্ষেত্রে ট্রেন চলাচলে লাল রং অনেক বেশি ব্যবহৃত হয়, এছাড়াও সাধারণত গাড়ির পেছনেও একটি লাল আলো দেওয়া হয়ে থাকে যাতে গাড়ির গতি কমলে বা ব্রেক কষলে অন্য গাড়ি সঠিক সময়ে সতর্ক হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button