একসঙ্গে অসাধারন গান গেয়ে আরও একবার মঞ্চ কাঁপলো অরুনীতা-পবনদীপ জুটি! মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁর বাসিন্দা হল অরুনিতা কাঞ্জিলাল। যার নাম এখন গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে মূলত ইন্ডিয়ান আইডলের জন্য। এবছরের ইন্ডিয়ান আইডল সিজন পুরস্কার ছিনিয়ে নিতে না পারলেও দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন তিনি। বেড়েছে তার সাথে জনপ্রিয়তা। বাঙালি হয়ে শুধু মাত্র গানের মাধ্যমে ও কণ্ঠস্বর দিয়ে বলিউডের মঞ্চ কাপানো সহজ নয় এমনটা মনে করছে অনেক অরুনিতা-র।

তাঁর বাবা অবনী ভূষণ কাঞ্জিলাল পেশায় একজন শিক্ষক। এছাড়া মা শ্রাবণী কাঞ্জিলাল ও দাদা অনীশ কাঞ্জিলালকে নিয়ে তাঁর পরিবার। মাত্র ৮ বছর বয়স থেকে গানে হাতে খড়ি অরুনিতার। তবে অরুনি তার ইন্ডিয়ান আইডল সিজন টুয়েলভ প্রথম রিয়েলিটি-শো নয় এর আগে 2013 সালের বাংলা সারেগামাপা লিটল চ্যাম্প বিজয়ী হয়েছিলেন তিনি।

ইন্ডিয়ান আইডল এর বিজয়ী পুরস্কার তিনি না পেলেও গোটা ভারতবর্ষের প্রায় কয়েক কোটি মানুষের মনে অবলীলায় জায়গা করে নিয়েছে বনগাঁর বাসিন্দা অরুনিতা কাঞ্জিলাল। অরুনিতা সম্পর্কে নতুন করে আর বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ এই মাত্র কয়েক দিনে এই গায়িকা এতটাই পরিমাণে ভাইরাল হয়েছে যে এখন সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে পাড়ার চায়ের দোকানে এমনকি মেয়েদের আড্ডার জায়গাতেও আলোচনার মূল কেন্দ্রবিন্দু হয়ে গেছে অরুনিতা,

তবে সম্প্রতি তিনি নিজের বনগাঁর বাড়িতে এসে উপস্থিত হয়েছে সেখান থেকে মাঝেমধ্যেই তুলে ধরছেন খালি গলায় গাওয়া কিছু গান মুহূর্তের দখল করছে খবরের শিরোনাম সম্প্রতি চিত্র দেখা গেল এবার আরো একবার। অরুনিতার সাথে পবনের প্রেমের একটা সম্পর্ক রয়েছে এমন টা গোটা সিজন ধরে দেখানো হয়েছিল দর্শকদেরকে। যদিও দর্শকরা এমনটা মনে করেছে শুধুমাত্র সেই রিয়েলিটি শোয়ের টিআরপি বাড়ানোর জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে এমন ঘটনা ঘটানো হয়েছিল।

যদিও এ ব্যাপারে দ্বিমত রয়েছে অনেক। তবুও সম্প্রতি ভিডিওটি প্রকাশিত হয়েছে সেটি পুনরায় তাঁর জনপ্রিয়তা তুঙ্গে পৌঁছে দিয়েছে। সম্প্রতি অরুনিটা ও পবন এর একটি গানের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। গানটি অতি পুরনো একটি হিন্দি গান তালি তালি অরুনিতাকে নাচতে দেখা গেছে। নিলামে পোশাক পরা অবস্থায় ছিল অরুনিতা ইতিমধ্যে সে ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছেন এর মধ্যে অনেকখানি প্রসঙ্গত উল্লেখ্য তানসেনের তানপুরা ইতিমধ্যে গান গেয়ে ফেলেছেন আরুনিতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button