স্বামীর বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ! মনোজিতের কাছে ডিভোর্স চাইলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়

স্বামী মনোজিৎ মণ্ডল নাকি বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন। এমনই যুক্তি দেখিয়ে এবার স্বামীর থেকে ডিভোর্স চাইলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। জানালেন, স্বামীকে তিনি এবার মুক্তি দিতে চান।প্রাক্তন অধ্যাপিকা বৈশাখী মঙ্গলবারেই নিজের মনের কথা খুলে বললেন। তাঁর কথায়, গত তিন বছর ধরে তাঁর স্বামী নাকি বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়েছেন।

তাঁরা নাকি একসাথে বিদেশ যান। ওই মহিলার একটি মেয়েও হয়েছে।পুরো বিষয়টি নিয়ে ভারাক্রান্ত অবস্থায় রয়েছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই তিনি আর কোন বিবাদের মধ্যে না গিয়ে বিবাহ বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। জোর করে কোন সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখা বুদ্ধিমানের মতো কাজ নয় বলেই মনে করেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি এমনটা কখনোই চাননা।

তাঁর কথায়, “বাকিরা যখন বলে, আমার স্বামী অন্য কারও সঙ্গে ঘুরে বেড়াচ্ছে, সেটা শুনতে ভাল লাগে না। আমারও তো মান-সম্মান আছে।” ঠিক সেই কারণেই বিবাহবিচ্ছেদ চাইছেন প্রাক্তন বিজেপি নেত্রী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের আনা এই অভিযোগ স্বীকার করেননি মনোজিৎ মন্ডল।

তিনি জানিয়ে দেন, ব্যক্তিগত জীবনে তিনি কি করছেন না করছেন সে কথা তিনি কাউকে জানাতে বাধ্য নন।তিনি বলেন, বৈশাখী যখন তাঁর সঙ্গে থাকতে চাননি, তখন তিনি আপত্তি করেননি। বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় বাড়ি ছেড়ে যাওয়ার সময়ও তাঁকে আটকাননি। তাই তিনি কাউকে কোনও কৈফিয়ত দিতে রাজি নন।

মাস খানেক আগে, শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে নিজের ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে জল্পনা বাড়িয়েছিলেন বৈশাখী। লিখেছিলেন, “শুধু আমি থেকে আমাদের একসঙ্গে পথচলা শুরু”। ফেসবুক প্রোফাইলের নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম রেখেছিলেন “বৈশাখী শোভন বন্দ্যোপাধ্যায়”।

তারপরেই নিজের স্থাবর-অস্থাবর সমস্ত সম্পত্তি বৈশাখীর নামে লিখে দিয়েছেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। এবারে নিজের স্বামীর বিরুদ্ধে বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ তুলে বিবাহবিচ্ছেদ চাইছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button